1. newsbanglapride24@gmail.com : banglapride24 : bangla pride
  2. jmitsolution24@gmail.com : support : Support Team
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৮:৩৪ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ
মামুন আল মাহতাব একজন দক্ষ চিকিৎসকই নয়, মানবিকও বটে জাপানের প্রযুক্তিখাত  বঙ্গবন্ধুকে সোনার বাংলা বিনির্মাণে অনুপ্রাণিত করেছিল : জুনাইদ আহমেদ পলক ঢাকা চাকা ও গুলশান চাকা’র ভাড়া পাঁচ টাকা কমানোর নির্দেশ ডিএনসিসি মেয়র প্রতিভা হারিয়ে যেতে দিতে চাই না: যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী রাইট টক বাংলাদেশ এর পক্ষ থেকে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি ভাষার মাসে যত আদর, তবে শিক্ষকরা না জানলে শেখাবে কে? পাকিস্তানে নতুন সরকারের বিরোধী দল হবে ইমরানের পিটিআই মিয়ানমান থেকে বাংলাদেশে আর কেউ অস্ত্র নিয়ে ঢুকতে পারবে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বিএনপি আর কোনো অবস্থায় ছাড় পাবে না : প্রধানমন্ত্রী বিএনপি ও মির্জা ফখরুল ব্যর্থ : ওবায়দুল কাদের

অপার সম্ভাবনায় সমৃদ্ধ নোয়াখালীর নিঝুম দ্বীপ

  • Update Time : বুধবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২৪

নোয়াখালী প্রতিনিধি: অপার সম্ভাবনা আর প্রকৃতির নৈসর্গিক সৌন্দর্যের লীলাভুমি নোয়াখালীর নিঝুম দ্বীপ। চারদিকে অথৈই জলরাশি আর ঢেউয়ের ছন্দে ছন্দে ভ্রমণপিপাসুরা যেন কবি হয়ে ওঠেন।

বঙ্গোপসাগরের কোলে বালুচরবেষ্টিত ছোট্ট সবুজ ভূখণ্ড নাম নিঝুম দ্বীপ। অগণিত শ্বাসমূলে ভরা কেওড়া গাছ দেয়াল বানিয়েছে দ্বীপের চারদিকে। এই দ্বীপটি ভ্রমণকারীদের মধ্যে বেশ খ্যাতি স্থান নিঝুম কুড়িয়েছে। পূর্বাকাশে জ্বলজ্বলে সূর্যের আলো সাগরের ছোট ছোট ঢেউগুলোয় ঝলমল করছে, সৈকতের কেওড়া বন পেরিয়ে অর্ধে হাওয়া এসে লাগছে গায়ে। নীল ভজলে সাতার কাটছে ছোট-বড় ট্রলার। সৈকত, কেওড়া বন, পাখি-প্রকৃতি, গ্রাম সেবকিছু একত্রে দেখতে চাইলে যে কোনো পর্যটক যেতে পারেন নিঝুম দ্বীপ।

নিঝুম দ্বীপ নোয়াখালীর বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার অন্তর্গত। ২০০১ সালের ৮ এপ্রিল বাংলাদেশ সরকার দ্বীপটিকে জাতীয় উদ্যান হিসেবে ঘোষণা করে। ২০১৩ সালে দ্বীপটি জাহাজমারা ইউনিয়ন থেকে পৃথক হয়ে স্বতন্ত্র ইউনিয়নের মর্যাদা লাভ করে। ১৯৫০-এর দশকে এ দ্বীপটি জেগে ওঠে। ক্রমে পলি জমে দ্বীপটি আজকের আকার ধারণ করে। ১৯৭৪ সালের দিকে বন বিভাগ এই দ্বীপের উত্তর অংশে ব্যাপকভাবে বনায়ন করে, ফলে ১৫ বর্গমাইল দ্বীপটির বেশির ভাগই পরিণত হয়েছে অভয়ারণ্যে। শুরুতে ‘চর ওসমান’ নামে পরিচিত হলেও ১৯৭৯ সালে সাবেক মন্ত্রী আমিরুল ইসলাম খান এই দ্বীপের নাম দেন ‘নিঝুম দ্বীপ।

জানা যায়, ওসমান নামের একজন তার মহিষের বাথান নিয়ে প্রথম এখানে বসত গড়েন। তাই তার নামেই চর ওসমান নামকরণ হয়। ১৯৫০ সালের দিকে জনবসতি গড়ে ওঠে। দ্বীপের মাটি চিকচিক করায় জেলেরা নাম দিয়েছেন বালুর চর। দ্বীপটিতে বালুর ঢিবি বা টিলার মতো ছিল বিধায় স্থানীয় লোকজন একে বাইল্যার ডেইল বা বাইল্লারচর বলেও ডাকত। নিঝুম দ্বীপে রয়েছে ৯টি গুচ্ছ গ্রাম। এ ছাড়া বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে বিস্তীর্ণ জনপদ।

নিঝুম দ্বীপের জনসংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার। দ্বীপের ৭০ ভাগ মানুষ মৎস্যজীবী ও ৩০ ভাগ কৃষিজীবী।বাংলাদেশ বন বিভাগ সত্তরের দশকে নিঝুম দ্বীপে তাদের কার্যক্রম শুরু করে। প্রথমে পরীক্ষামূলকভাবে চার জোড়া হরিণ ছাড়া হয়। দ্বীপটি বর্তমানে হরিণের অভয়ারণ্য। ১৯৯৬ সালের হরিণশুমারি অনুযায়ী হরিণের সংখ্যা ২২ হাজার।

দর্শনীয় স্থানসমূহ
কমলার দ্বীপ: সেখানের কমলার খালে অনেক ইলিশ মাছ পাওয়া যায়। এছাড়াও আশে পাশের দ্বীপগুলো সুন্দর। পুরো দ্বীপটা হেঁটে হেঁটে ঘুরা যাবে।
চৌধুরী খাল ও কবিরাজের চর: যেতে হবে বিকেলে সন্ধ্যার আগে, চৌধুরীর খাল নেমে ঘণ্টা খানেক হাঁটলেই বনের মধ্যে হরিণের পালের দেখা পেতে পারেন।

চোয়াখালি ও চোয়াখালি সমুদ্র সৈকত: চোয়াখালিতে গেলে খুব সকালে হরিণ দেখা যায়। মটর সাইকেল ওয়ালাকে বলে রাখুন খুব সকালে আপনাকে হোটেল থেকে নিয়ে হরিন দেখিয়ে আনবে।
ম্যানগ্রোভ বন: নিঝুম দ্বীপ বনায়ন প্রকল্প।

নামার বাজার সমুদ্র সৈকত: নামার বাজার থেকে হেঁটে যেতে ১০ মিনিট লাগে। এখান থেকে সূর্য উদয় ও সূর্যাস্ত দেখতে পাবেন, এখানে বারবিকিউ করে মজা পাবেন।

দমার চর: এই চরের দক্ষিণ দিকে নতুন একটি সমুদ্র সৈকত আছে যাকে বলে “কুমারী দ্বীপ”। খুব সকালে এখানে অনেক নাম না জানা পাখির দেখা পাওয়া যায়।

কিভাবে যাবেন: ঢাকা থেকে নদী ও সড়ক পথে নিঝুমদ্বীপে যাওয়া যায়। সবচেয়ে সহজ যাতায়াত ব্যবস্থা হল ঢাকার সদরঘাট থেকে লঞ্চে হাতিয়া, সেখান থেকে নিঝুমদ্বীপ। ঢাকার সদরঘাট থেকে প্রতিদিন বিকাল সাড়ে ৫টায় একটি মাত্র লঞ্চ হাতিয়ায় তমুরদ্দী ঘাটের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। গন্তব্যে পৌছতে পৌছতে পরদিন সকাল ৯ টা বেজে যাবে। তমুরদ্দী ঘাট থেকে ঢাকার ফিরতি লঞ্চ ছাড়ে দুপুর সাড়ে ১২টায়। লঞ্চের ডেকে, সিঙ্গেল কেবিন ও ডাবল কেবিনে ভাড়া পড়বে যথাক্রমে ৫৫০ টাকা, এক হাজার ২০০ টাকা ও দুই হাজার ২০০ টাকা।

তমরুদ্দি ঘাট থেকে সিএনজি অটোরিকশায় বা মোটরসাইকেলে মোক্তারিয়া ঘাট পৌঁছা যাবে। বাকি পথটা একইভাবে পাড়ি দিতে হবে। তবে তমরুদ্দি ঘাট থেকে সরাসরি নিঝুম দ্বীপের নামার বাজার পর্যন্ত জলপথটা পাড়ি দেওয়ার আরেকটি উপায় আছে। তমরুদ্দি ঘাট থেকে কিছু মাছ ধরার ট্রলার সরাসরি নামার বাজার যায়। এগুলোতে উঠতে হলে সকাল ১০টার আগেই ঘাটে উপস্থিত থাকতে হবে। আর জনপ্রতি ভাড়া পড়বে ২০০ থেকে ৩০০ টাকা। এ ছাড়া এখান থেকে ট্রলার রিজার্ভ করেও সরাসরি নামার বাজার যাওয়ার ব্যবস্থা আছে। তবে সেক্ষেত্রে তিন হাজার ৫০০ থেকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত ভাড়া পড়তে পারে।

বাসে চড়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে ঢাকার সায়দাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে নোয়াখালীর সোনাপুর পর্যন্ত যাওয়া যাবে। বাসের ধরনের ওপর ভিত্তি করে এসব বাসে ভাড়া পড়তে পারে ৫০০ থেকে ৫৫০ টাকা। সোনাপুর থেকে চেয়ারম্যান ঘাট যাওয়ার জন্য  বাস অথবা নিতে হবে সিএনজি চালিত অটোরিকশা। পুরো একটা সিএনজি রিজার্ভ করতে খরচ পড়বে ৫০০ টাকা। বাসে জনপ্রতি ভাড়া পড়বে ৬০ টাকা করে।

চেয়ারম্যান ঘাট থেকে হাতিয়া যাওয়ার জন্য আছে ট্রলার, সি-ট্রাক, ও স্পীড বোট। যেগুলোতে জনপ্রতি ভাড়া পড়তে পারে যথাক্রমে ২৫৫, ১৪৫ এবং ৫০০ টাকা। এই জলযানগুলো নামিয়ে দিবে হাতিয়ার নলচিরা ঘাটে। এখানে মনে রাখা উচিত যে, চেয়ারম্যান ঘাট থেকে সি-ট্রাক ছাড়ে প্রতিদিন সকাল ৮টায়। আর নলচিরা থেকে চেয়ারম্যান ঘাট আসার ফিরতি সি ট্রাক ছাড়ে সকাল ১০টায়।

নলচিরা ঘাট থেকে স্থলপথে সিএনজি অটোরিকশায় বা মোটরসাইকেলে মোক্তারিয়া ঘাট পৌঁছা যাবে। বাকি পথটা একইভাবে পাড়ি দিতে হবে। মোটরসাইকেলে  ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা ভাড়ায় সর্বোচ্চ দুইজনকে মোক্তারিয়া ঘাট পর্যন্ত পৌছে দেয়। অতঃপর মোক্তারিয়া ঘাট থেকে ট্রলারে চেপে জনপ্রতি ৪৫ টাকা ভাড়ায় পৌঁছা যাবে নিঝুম দ্বীপের বন্দরটিলা ঘাটে।

ট্রেন ভ্রমণ করতে হলে ঢাকার কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে উঠতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2022
Design & Developed By : JM IT SOLUTION