1. newsbanglapride24@gmail.com : banglapride24 : bangla pride
  2. jmitsolution24@gmail.com : support : Support Team
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৭:৪৪ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ
মামুন আল মাহতাব একজন দক্ষ চিকিৎসকই নয়, মানবিকও বটে জাপানের প্রযুক্তিখাত  বঙ্গবন্ধুকে সোনার বাংলা বিনির্মাণে অনুপ্রাণিত করেছিল : জুনাইদ আহমেদ পলক ঢাকা চাকা ও গুলশান চাকা’র ভাড়া পাঁচ টাকা কমানোর নির্দেশ ডিএনসিসি মেয়র প্রতিভা হারিয়ে যেতে দিতে চাই না: যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী রাইট টক বাংলাদেশ এর পক্ষ থেকে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি ভাষার মাসে যত আদর, তবে শিক্ষকরা না জানলে শেখাবে কে? পাকিস্তানে নতুন সরকারের বিরোধী দল হবে ইমরানের পিটিআই মিয়ানমান থেকে বাংলাদেশে আর কেউ অস্ত্র নিয়ে ঢুকতে পারবে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বিএনপি আর কোনো অবস্থায় ছাড় পাবে না : প্রধানমন্ত্রী বিএনপি ও মির্জা ফখরুল ব্যর্থ : ওবায়দুল কাদের

‍ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে নিম্নচাপ -দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী

  • Update Time : শুক্রবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২৩

স্টাফ রিপোর্টার: বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট গভীর নিম্নচাপটি বৃহস্পতিবার শেষ রাত নাগাদ ঘূর্ণিঝড় ‘মিধিলি’তে রূপ নিতে পারে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান। এটি শুক্রবার সন্ধ্যার মধ্যে বাংলাদেশের উপকূল অতিক্রম করতে পারে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

আজ (১৬ নভেম্বর) সন্ধ্যায় সচিবালয়ে ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি বাস্তবায়ন বোর্ডের সভা শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে এ তথ্য জানান প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে ভোর নাগাদ গভীর নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলের প্রায় ১১টি জেলায় আঘাত হানার সম্ভাবনা রয়েছে।
জেলাগুলো হলো বরগুনা, পটুয়াখালী, পিরোজপুর, ভোলা, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট ও চট্টগ্রাম।

গভীর নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হলে এর বাতাসের গতিবেগ থাকবে ৬৪ থেকে ৮৮ কিলোমিটার। এটি সর্বোচ্চ ৯০ কিলোমিটার বাতাসের গতিবেগ নিয়ে উপকূলে আঘাত হানতে পারে। নিম্নচাপটি এখন মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৪০০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এগিয়ে যাওয়ার গতি বিশ্লেষণ করে আমরা আশা করছি, এটি ঘূর্ণিঝড় হিসেবে আগামীকাল (শুক্রবার) দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে উপকূলীয় অঞ্চলে আঘাত আনতে পারে।

তিনি বলেন, ‘গত মাসে ঘূর্ণিঝড় হামুনের সময় উপকূলীয় জেলা সমূহে বরাদ্দ দেওয়া চাল, শুকনা খাবার, গোখাদ্য, শিশু খাদ্য ও অর্থ বরাদ্দ দিয়েছিলাম। সেসব বরাদ্দ মজুদ আছে। সেগুলো সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসন প্রয়োজনে ব্যবহার করবেন,খরচ করবেন। আরও প্রয়োজন হলে আমাদেরকে জানালে আমরা সাথে সাথেই ব্যবস্থা করে দিব।’

কত সংখ্যক মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে নেওয়ার প্রয়োজন হতে পারে- জানতে চাইলে ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বলেন, সঠিক সংখ্যাটা বলা কঠিন। যেহেতু এটি ক্যাটাগরি-১ ঘূর্ণিঝড় তাই ঝুঁকির পরিমাণ কম।‌ তাই আমরা একেবারে উপকূলবর্তী যারা বাস করে তাদের সরিয়ে নেওয়ার জন্য কাজ করব।

এ সময় মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ কামরুল হাসান, অতিরিক্ত সচিব কে এম আব্দুল ওয়াদুদ, মোঃ হাসান সারওয়ার এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ মিজানুর রহমানসহ মন্ত্রণালয় এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2022
Design & Developed By : JM IT SOLUTION